lifocyte.com

সাইকোথেরাপিস্ট

সাইকোথেরাপিস্ট ও হোমিওপ্যাথের মধ্যে সম্পর্ক-২

 
Relation between Psycho therapist and Homoeopath-2

ব্যর্থতাকে জয় করুন

সাইকোথেরাপিস্ট ও হোমিওপ্যথের মধ্যে সম্পর্ক-১ এ একটা উদাহরণ দিয়েছিলাম তার বিশ্লেষণ করে সাইকোথেরাপিস্ট  ও হ্যমিওপ্যাথের  সম্পর্ক তুলে ধরার চেষ্টা করব ইনশাআল্লাহ। উদাহরণ : একব্যক্তি স্ত্রীকে/প্রেমিকাকে খুব ভালো বাসতো। যেকোনো কারণে হোক,তাদের বিচ্ছেদ হয়ে গেলো।কিন্তু সে মেনে নিতে না পারায় মাদকাসক্ত হয়ে গেলো এবং ধিরে ধিরে অসংলগ্ন কথা কাজ এমন কি অসামাজিক কর্মে লিপ্ত হলো।মেডিকেল মডেল মতে জীবাণুর আক্রমন নেই।অতএব এখানে তার রোগের একমাত্র চিকিৎসা সাইকোথেরাপি। মেডিসিন কেবলমাত্র তার উদ্ভ্রান্ত চালচলনে সৃষ্ট কিছু রোগ সারাতে পারে; তার মনের উপর ক্রিয়া করতে পারে না।

 হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা 

রোগীর কেস টেকিং নেন।

১।তার রোগ উৎপত্তির কারণ প্রিয়া হারানো(Ignatia).

২।মাদকাসক্ত, লম্পাট্য রাত্রি জাগরণ ক্ষুধামন্দা (Nux vom).

৩।অসংলগ্ন কথাবার্তা অশ্লিল কর্মকাণ্ড, উলঙ্গ হওয়া,হাতে তালি বাজানো (Stranomium,Hyociums)

৪।আত্মহননের প্রবণাতা ( N.S) ইত্যাদি লক্ষণ অনুযায়ী মেডিসিন আছে। এখানে আমার লক্ষ চিকিৎসা দেয়া নয়। সাইকোথেরাপির সাথে হোমিওপ্যাথির নিগুড় সম্পর্ক তুলে ধরা। একথা নিশ্চিত যে রোগীকে কোনো জীবাণু আক্রমন করেনি যার জন্য সে এই অবিস্থা প্রাপ্ত। তাহলে কেমনে ঔষধে সুস্থ্য হবে? তার জন্য সাইকোথেরাপি আবশ্যক। মনোরোগ বিশেষজ্ঞ দ্বারা মানসিক চিকিৎসা দিতে হবে। 

কিন্তু আমাদের মতো অনুন্নত দেশে সাইকোথেরাপিস্ট পাবেন কই। এই চিকিৎসা যেমন সময় সাপেক্ষ তেমনি ব্যয় ব্যয়বহুল। কোনো দেশের চিকিৎসা ব্যাবস্থা চালুহয় সে দেশের রোগীর সামর্থের উপর।এজন্য দেশে অল্প ব্যয়ে ঐন্দ্রজালিক চিকিৎসা, ঝাড়ফুঁক, তান্ত্র-মন্ত্র দ্বারা মানসিক চিকিৎসা চলছে যুগ-যুগান্তরে।ফলাফল কেউ স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসে, কেউ ভারসাম্যহীন হয়ে চিরনিদ্রায় চলে গেছে এবং  যাচ্ছে।

সাইকোথেরাপিস্ট ও হোমিওপ্যাথ

 

উপরিউক্ত রোগীর জন্য সাইকোথেরাপিস্ট তাকে মানসিক চিকিৎসা দিবেন। এমনকি বিদ্যুৎশক, নানা প্রকার যত্রণাও দিতে পারেন,তার সঙ্গে বিভিন্ন দিকনিয়ে আলোচনা করবেন তার ভাবের সাথে নিজের সম্পর্ক গভীর করে আস্তে আস্তে তার বোধশক্তি ফিরে আনবেন। এক্ষেত্রে অনেক সময় রোগীর ইচ্ছেশক্তি ও গ্রহণ ক্ষমতাও আবশ্যক অন্যথায় ফলাফল শূন্য বা নেগেটিভ হতে পারে। একজন হোমিওপ্যাথ প্রথমে সম্ভব হলে তাকে। না হলে তার ফ্যামিল হতে রোগী ইতিবৃত্ত জেনে নিবেন। বর্তমানে যে লক্ষণ প্রকট দৃষ্ট হবে তা প্রয়োগ করবেন।যেমন -Hyiciumsদেয়ার পর দেখা গেলো তার সেই লক্ষণ গুলো নাই বা অনেক শিথিল।কিন্তু লাম্পট্য ভাব কমেনি,নিদ্রা সমস্যা এখন তাকে Nux vom দিয়ে চিকিৎসা করার কিছুদিন পর দেখাগেলো সে একাকীত্ব পছন্দ করে কিযেনো ভাবে, দীর্ঘশ্বাস ফেলে কখনো ইত্যাদি এখন Ignatia দিলে দেখাযাবে রোগী অনেকটা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসছে।

ইতোমধ্যে চিকিৎসক রোগী মধ্যে ভাবের আদান প্রদান হয়ে যায়। এখন রোগী আপনা থেকেই সপ্তাহে বা মাসে দু এক দিন লক্ষণ ভেদে কিছুদিন চিকিৎসা করলে আশাকরা যায় সে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসবে। অবশ্য এখন অনেকেই আমাকে প্রশ্ন করবেন তাকে তো প্রথমেই Ignatia দেয়া কর্তব্য ছিল। হ্যা দিয়েন আমি চিকিৎসার সাথে সাইকোথেরাপির সম্পর্ক নির্ণয়ের জন্য একটু আলাদাভাবে বিশ্লেষণ করলাম। লক্ষণ অনুসারে হোমিও নীতি অবলম্বন করে চিকিৎসা দিন দ্রুত আরোগ্য হবে ইনশাআল্লাহ।সেক্স থেরাপি একপ্রকার সাইকোথেরাপি যা দ্বারা মেডিসিন ছাড়াই সুস্থ হও্যা যায় ।

হোমিওপ্যাথির সাথে সাইকোথেরাপি সম্পর্ক

রোগের উৎপত্তি মানসিক হলেও তার অস্বাভাবিক জীবনযাত্রার কারণে ব্যক্তি নানা প্রকার জীবানু সংক্রামিত হয়ে রোগের ধরণ ও তীব্রতা পাল্টে যায় ফলে তার জন্য মেডিসিন সেবন আবশ্যক হয়ে পরে।তাই মনোচিকিৎসা ও দৈহিক চিকিৎসার সমন্বিত চিকিৎসা প্রয়োজন। শুধু সাইকোথেরাপি দিয়ে অনেক মনোব্যধি নির্মূল করা সম্ভব নয় বিধেয় সাইকোথেরাপিস্ট গণের রোগ লক্ষণ ও মেডিসিনের উপর সাম্যক ধারণ থাকা আবশ্যক। হোমিওপ্যাথিতে যেহেতু লক্ষণ অনুযায়ি চিকিৎসা দেয়া হয় এবং মানসিক লক্ষণের প্রাধান্য সর্বাগ্রে এবং রোগীর খাদ্য, অভ্যাস অনেকেটা চিকিৎসক কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত হয়এবং তাই এই চিকিৎসা পদ্ধতিকে সাইকোথেরাপি বললে ওত্যুক্তি হবে না।

যারা হোমিওপ্যাথিকে প্লাসিবো ট্রিটমেন্ট বা সিউডো সাইন্স বলে উপহাস করেন তাদের উদ্দেশ্য বলছি হোমিওপ্যাথিকে কমপক্ষে সাইকোথেরাপি বলে স্বীকার করতে হবে। তদুপরি হোমিও চিকিৎসক গন রোগের, ঔষধের জ্ঞান অর্জন করে সার্জিক্যাল বিদ্যা এলোপ্যাথিক মেডিকেল কলেজে ইন্টার্নশিপ করে থাকেন।

একারণে একজন হ্যমিওপ্যাথ একাধারে মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ও সাইকোথেরাপিস্ট।মহাত্মা হ্যানিম্যান মানব সেবাকে ব্রত হিসেবে নিয়েছিলেন বলেই হয়তো মহান স্রষ্টা তাকে এমন অমূল্য এক চিকিৎসা হাতে দিয়েছেন। যার মধ্যে সাইকোথেরাপি ও মেডিসিনের কম্বিনেশন পাওয়া যায়। অনুন্নত দেশের নিপীড়িত মানুষগুলো খুব অল্প ব্যয়ে স্বল্প সময়ে মনোদৈহিক চিকিৎসা নিয়ে স্বাভাবিক জীবন ধারণ করার পথ খুঁজে পেয়েছে।

দৃষ্টি আকর্ষণ: 

মানুষ মাত্রই ভুল। বিজ্ঞানমাত্রই পরিবির্তনশীল। অতএব কারণে আমার লেখা অভিজ্ঞতার ভুলগুলো সংশোধন করে দিয়ে বাধিত করবেন।অভিযোগ,উপদেশ, পরামর্শ, অভিজ্ঞতা লিখতে চাইলে লিখুন আপনার নামেই প্রকাশ করার প্রতিশ্রুতি রইল।সাইক্কোসেরাপিস্ট ও সাইক্লোজিক্যাল চিকিৎসা জানতে ।

1 thought on “সাইকোথেরাপিস্ট ও হোমিওপ্যাথের মধ্যে সম্পর্ক-২”

  1. Pingback: সাইকোথেরাপিস্ট ও হোমিওপ্যাথের মধ্যে সম্পর্ক-১ (মানসিক ও শারিরীক চিকিৎসা) - lifocyte.com

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *